শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:২৪ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
দেশ-বিদেশের সকল আপডেট খবর পেতে ভিজিট করুন অনলাইন ভার্সন ‘ মদিনা কন্ঠ’ ধন্যবাদ।
ব্রেকিং নিউজ :
বিশ্বনাথে প্রবাসী কল্যান সমিতির কর্তৃক কোভিড-১৯ এ ক্ষতিগ্রস্তদের নগদ অর্থ প্রদান বরিশালে বিসিক উদ্যােক্তা মেলা দীর্ঘ ৬ মাস বন্ধ থাকায় পথে বসেছে আয়োজকরা, চালু’র দাবি ঝালকাঠিতে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে আওয়ামীলীগ নেতা সিদ্দিক গ্রেফতার খুলনার আমিরপুরে হাতপাখার প্রার্থী মাওঃ মিছবাহ উদ্দিনের ব্যাপক গণসংযোগ হিজলায় ৬শত সাতচল্লিশ শিশু শিক্ষার্থীর ভবিষ্যত অনিশ্চিত ব্রিজটি এখন যেন দুই গ্রামের মানুষের মরণফাঁদ মাওলানা আবদুর রাজ্জাক জেহাদীর ইন্তেকালে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর শোক ঝালকাঠি সরকারি কলেজে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে ক্লাস বিশ্বনাথ উপজেলা জামাতের সাবেক নায়েবে আমির নিজাম সিদ্দিকী গ্রেফতার সেনহাটী ইউনিয়নে হাতপাখার প্রার্থীর গণসংযোগ

লকডাউনে ভালো নেই ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা

ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী

মেহেদী তামিম, বরিশাল। দেশে দেড় বছরের একটি অভিশপ্ত শব্দ করোনা।করোনা শব্দটি এতই অভিশপ্ত যে, সচল দেশকে করে দিয়েছে অচল।দিন দিন দখল করে নিচ্ছে তার এগিয়ে যাওয়ার রাজত্ব। চিকিৎসা বিজ্ঞানও যেন আজ হার মানছে অভিশপ্ত করোনার কাছে। মৃত্যুর মিছিল বেড়েই চলেছে দিন দিন। কোন কিছুর কাছেই যেন নত হতে চাচ্ছেনা করোনা। তারপরও বাংলাদেশ সরকার দেশ, ও দেশের জনগনের মঙ্গলের কথা চিন্তা করে করোনার শুরু থেকেই দিচ্ছে ধাপে, ধাপে লকডাউন।

এরই ধারাবাহিকতায় বরিশালেও চলছে সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউন। কিন্তু কঠোর লকডাউন এখন কঠোর করে দিয়েছে সাধারন ব্যাবসায়ীদের বেঁচে থাকার জীবনকে, লকডাউনে দিন দিন গরীব হয়ে যাচ্ছে সাধারণ ব্যাবসায়ীরা। বরিশালের বিভিন্ন সাধারন ব্যাবসায়ীদের কাছ থেকে জানা যায়, তারা এতটাই অসহায় হয়ে পড়েছে যে অনেকেই এখন রাস্তায় বসে পড়ার মত।

বরিশাল জর্জ কোর্টের সামনে সাধারন ফল ব্যাবসায়ী মোঃজসিম খান (৪০)বলেন, ভাই আমার বাড়ি বাকেরগন্জ চরামদ্দি, লকডাউনে আমি এতটাই অসহায় হয়ে পড়েছি যে, আমার স্ত্রী সন্তানকে গ্রামের বাড়ি দিয়ে আসছি, করোনার আগে স্ত্রী, সন্তানকে নিয়ে বরিশাল বাসা ভাড়া থাকতাম, আর এখন আমি নিজে ১০০০ টাকা দিয়ে টি,এন,টি মসজিদের ঔখানে বাসা ভাড়া থাকি তাও ভাড়া ঠিকমত দিতে পারিনা।

করোনার আগে স্ত্রী সন্তান নিয়ে দিন ভালোই কাটছিলো। ফল বিক্রি করে দৈনিক ৫০০-৬০০ টাকা কামাই করতাম। আর এখন করোনা আসার পরে ধাপে ধাপে লকডাউনে এতটাই গরীব হয়েছি যে,৫০০ টাকায় একটি মোরগ বিক্রি করে সেই টাকা দিয়ে বরিশাল আসছি। এখন চলেন কিভাবে? ভাই ফলের আড়ত দিয়া বাকিতে কিছু ফল আনছি, যদি এই ফল বিক্রি করতে পারি তাহলে আড়তদারকে দেয়ার পর যেটা থাকবে সেটা দিয়ে কষ্ট করে চলতে হবে আরকি।

এদিগে আরেক জন ড্রাম ব্যাবসায়ী আজাদ বলেন ভাই করোনার কারনে ধাপে ধাপে লকডাউন দেওয়ায় ব্যাবসা বানিজ্য আজ শেষ হয়ে গেছে। জমানো যে টাকা ছিল তা দোকান ভাড়া দিতে দিতে আর ধাপে, ধাপে লকডাউনের ভিতর সংসার চালাতে সব টাকাতো শেষই, বরংচো এখন একলক্ষ টাকার মত দেনা আছি। কি বলবো ভাই সোজাকথা এখন গরীব হয়ে গেছি।

মন্তব্য প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। প্রকাশিত লেখাটির আইনগত, মতামত বা বিশ্লেষণের দায়ভার সম্পূর্ণরূপে লেখকের । মদিনা কন্ঠ-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এসব মন্তব্যের কোনো মিল নাও থাকতে পারে। লেখকের নিজস্ব মতামতের কোনো প্রকার দায়ভার “মদিনা কন্ঠ‘র কর্তৃপক্ষ ” নেবে না।





© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮ - ২০২১.  মদিনা কন্ঠ
Design & Developed BY Rahmatullah Palush
error: Content is protected !!