শনিবার, ৩১ Jul ২০২১, ০৮:৪৫ অপরাহ্ন

নোটিশ :
দেশ-বিদেশের সকল আপডেট খবর পেতে ভিজিট করুন অনলাইন ভার্সন ‘দৈনিক মদিনা কন্ঠ’ ধন্যবাদ।
ব্রেকিং নিউজ :

বাম্পার ফলনেও হাসি নেই রাজাপুরের আমড়া চাষিদের মুখে

আমড়া

মো. নাঈম ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠির রাজাপুরে বাম্পার ফলনেও হাসি নেই রাজাপুরের আমড়া চাষিদের মুখে। এ উপজেলার মাটি ও আবহাওয়া আমড়া চাষের জন্য খুবই উপযোগী। লাভজনক এ মৌসুমী ফল আমড়া গাছে রোগ বালাই খুবই কম। ফলে উপজেলার আংগারিয়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মোঃ শাহআলম নান্নুর আমড়া গাছে থোঁকায় থোঁকায় ঝুলছে আমড়া।

আমড়া গাছ রোপণের দু’বছর পরই তা ফল দেয় এবং কমপক্ষে ১০/১২ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকে। ‘বরিশালের আমড়া’র খ্যাতি দেশজুড়ে। দক্ষিণাঞ্চলের মাটি ও পানি আমড়া চাষের জন্য বেশ উপযোগী। বিশেষ করে বরিশালের ঝালকাঠির রাজাপুরে সুস্বাদু আমড়ার ফলন হয় সবচেয়ে বেশি। বলা চলে সারা দেশের আমড়ার চাহিদার ৬০-৭০ ভাগ মেটায় এ অঞ্চলের চাষিরা। গেল কয়েক বছরে বাম্পার ফলনও হয়েছে। সুস্বাদু আর সুখ্যাতির কারণে কৃষকরা দামও পেয়েছেন বেশ। ভালো টাকা আয়ের সুযোগ থাকায় রাজাপুরের আমড়া চাষির সংখ্যা দিনদিন বাড়ছে।

ইতোমধ্যে রাজাপুরের আমড়া একটি অর্থকরী ফল হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে। এটি চাষ করে জেলার বিভিন্ন উপজেলার চাষিরা বেশ ভালো আয় করছেন। এমনকি স্থানীয়দের চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হচ্ছে। জেলার বিভিন্ন উপজেলার স্থানীয় বাজারে পাইকারদের মাধ্যমে এসব আমড়া বিক্রি করে বাগানের মালিকরা কোটি কোটি টাকা আয় করছেন। তবে মধ্যস্বত্বভোগীদের অধিক মুনাফার কারণে আমড়া চাষিরা ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

বাগান মালিকদের কাছ থেকে প্রতি বছর পাইকাররা বাগানঠিকা আমড়া ক্রয় করছেন। দেড় শতাধিক আমড়া গাছের বাগানের আমড়া বাগান মালিকরা পাইকারদের কাছে বিক্র করতেন ৫০-৬০ হাজার টাকায়। তাতেই বেশ খুশি হতেন মালিকরা। কিন্তু এবছর করোনার কারনে যোগাযোগে সমস্যা ও বিভিন্ন সময় লকডাউনে বিভিন্ন শহরে লোকজন বাহিরে বেরহতে না পারায় আমড়ার চাহিদা কম থাকার অজুহাতে এমনকি সামনের দিনগুলিতে করোনা পরিস্থিতি আরো খারাপ হওয়ার আশঙ্কায় ওই বাগানে দুই শতাধিক গাছে আমড়ার বাম্পার ফলন হলেও পাইকাররা দাম বলছেন ২৫-৩০ হাজার টাকা। তাতে লোকশানের মুখে পড়ছেন রাজাপুরের আমড়া চাষিরা। এসব এলাকার আমড়া কেনা-বেচার জন্য রয়েছে একদল ব্যাপারী। তারা চৈত্র-বৈশাখ মাসে গৃহস্থদের অগ্রিম টাকা দিয়ে আমড়ার গাছ কিনেন। ওই ক্রেতারা স্থানীয় পাইকারদের কাছে এসব আমড়া বিক্রি করেন।

পাইকাররা তা বস্তাবন্দি করে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় পাঠায়। শ্রাবণ থেকে কার্তিক- চারমাস পর্যন্ত স্থানীয় ব্যাপারীরা গৃহস্থদের কাছ থেকে আমড়া কিনেন। আবার কেউ কেউ গৃহস্থদের কাছ থেকে কেনা গাছ থেকে এসময়ে পর্যায়ক্রমে আমড়া সংগ্রহ করেন। তারপর সেগুলো বস্তা হিসেবে ব্যাপারীরা রাজাপুরের পার্শ্ববর্তী জেলার সবচেয়ে বড় আমড়ার মোকাম কাউখালীতে নিয়ে বিক্রি করেন। এরপর সেখান থেকে লঞ্চে করে ঢাকা, চাঁদপুর, মুন্সিগঞ্জ, চট্টগ্রাম, রংপুর, সিলেট, যশোরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হয়।

রাজাপুরের আমড়া চাষি মুক্তিযোদ্ধা মোঃ শাহআলম নান্নু বলেন, আমড়া চাষ সহজ ও লাভজনক বলে এর চাষ করছি। গত বছর প্রায় দেড় একর জমিতে লাগানো দেড় শতাধিক আমড়া গাছ থেকে প্রায় ৬০ হাজার টাকা পেয়েছিলাম। কিন্তু ওই জমিতে এ বছর ফলন গাছের সংখ্যা দুই শতাধিক এবং ফলনও আগের তুলনায় বেশী। এবছর করোনায় পরিবহন সমস্যা ও লকডাউনের কারনে বিভিন্ন শহরে লোকজন কম। তাই আমড়ার চাহিদাও কম। একারনে পাইকাররা এবছর দাম বলছেন ২৫ হাজার টাকা। তিনি আরও বলেন, আমড়া গাছের বয়স একটু বেশি হলে তাতে পোকায় ধরলে স্থানীয় উপজেলা কৃষি অফিসের পরামর্শে প্রতিকার করা সম্ভব। তাছাড়া কিছু কিছু গাছে বৈশাখের শুরুতে নতুন গজানো পাতায় লেদাপোকা আক্রমণ করে। এসময় বিভিন্ন ধরনের কীটনাশক ছিটালে তা দূর হয়।

উপজেলার আংগারিয়া গ্রামের আমড়াচাষি মোদাচ্ছের হাওলাদার, দেলোয়ার হোসেন ও শাহআলম হাওলাদার বলেন, এবার আমড়ার বাম্পার ফলন হয়েছে। আর পরিবহন সমস্যার কারনে এবারে আমড়ার দাম তুলনামূলকভাবে কম। তাছাড়া মধ্যস্বত্বভোগীদের কারণেও আমড়া বেচাকেনার মুনাফার পুরোটা ঢোকে না চাষিদের পকেটে। সে কারণেই আমড়া চাষিরা বাম্পার ফলনে খুশি হয়েও যেন খুশি নন। এবিষয়ে উপজেলা কৃষিকর্মকর্তা মোঃ রিয়াজুল্লাহ বাহাদুর বলেন, এবছর রাজাপুরে ১শ’ ৮০ হেক্টর জমিতে আমড়া চাষ করা হয়েছে। ফলনও ভালো হয়েছে। ফলনের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে ১০ হাজার মেট্রিক টন। এটি একটি অর্থকারী ফসলও বটে। করোনা মহামারিতে পরিবহন সমস্যার কারনে কৃষকরা এবছর আমড়ার ন্যায্য মূল্য পাচ্ছেননা। তিনি আরো বলেন, রাজাপুর তথা বরিশালের আমড়া এখন দেশের ঐতিহ্য। দেশের চাহিদা মিটিয়ে এখন ভারত, মালয়েশিয়া, নেপালসহ বিভিন্ন দেশে তা পাঠানো হচ্ছে। মধ্যপ্রাচ্যেও যাচ্ছে নিয়মিত।

মন্তব্য প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। প্রকাশিত লেখাটির আইনগত, মতামত বা বিশ্লেষণের দায়ভার সম্পূর্ণরূপে লেখকের । মদিনা কন্ঠ-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এসব মন্তব্যের কোনো মিল নাও থাকতে পারে। লেখকের নিজস্ব মতামতের কোনো প্রকার দায়ভার “মদিনা কন্ঠ‘র কর্তৃপক্ষ ” নেবে না।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮ - ২০২১.  মদিনা কন্ঠ
Design & Developed BY Rahmatullah Palush
error: Content is protected !!