রবিবার, ২০ Jun ২০২১, ১২:৩৯ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
দেশ-বিদেশের সকল আপডেট খবর পেতে ভিজিট করুন অনলাইন ভার্সন ‘দৈনিক মদিনা কন্ঠ’ ধন্যবাদ।
ব্রেকিং নিউজ :
বিশ্বনাথে ইভটিজিং করায় যুবককে কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত। হিজলায় গুয়াবাড়িয়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী আমিনুল ইসলাম স্বপন চৌধুরী‘র জয়জয়কার। ঈশ্বরগঞ্জে সাংবাদিকদের সাথে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফিং। বাসায় ফিরেছেন ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান। শাহান আরা বেগম এর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মোনাজাত। গলাচিপায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে উপলক্ষে মতবিনিময় সভা। বিশ্বনাথে প্রবাসীদের নামে চত্বর, অনুদান দিলেন এমপি মোকাব্বির। নলছিটির মগড় ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী জসিম উদ্দিনের জয়জয়কার। মেহেন্দিগঞ্জে কলাগাছ খাওয়ার জেরে দুটি গরু নির্মমভাবে কুপিয়ে রক্তাক্ত করলো মেম্বারের ছেলে। তালতলীতে আগুনে পুড়ে গেল ১২ দোকান।

বাঁশখালীতে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস’র প্রভাব, উপকূলীয় এলাকার বেড়িবাঁধ উপছে প্লাবিত বিস্তির্ন অঞ্চল।

আলমগীর ইসলামাবাদী,চট্টগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃ  ঘূর্ণিঝড় “ইয়াস”র প্রভাবে চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী উপজেলার উপকূলীয় এলাকার অরক্ষিত ও ক্ষত বিক্ষত বেড়িবাঁধ উপছে লোকালয়ে ঢুকে পড়ছে সাগরের লোনা পানি। এতে উপকূলীয় এলাকার অনেক ঘর বাড়ি ইতিমধ্যে প্লাবিত হয়ে পড়েছে এবং মারাত্বক শংকা দিয়েছে আঁউশ আবাদে।

আজ বুধবার ( ২৬ মে’২১ ইং) দুপুর ২ টার সময় বাঁশখালীর গন্ডামারা, খানখানাবাদ, বাহারচডা, সরল, শীলকূপ, শেখেরখীল ও ছনুয়াসহ বঙ্গোপসাগর উপকূলীয় প্রায় এলাকায় স্বাভাবিক জোয়ারের ছেয়ে ৪/৫ ফুট অতিরিক্ত পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় জোয়ারের সময় গন্ডামারা ইউনিয়নের খাটখালী, পশ্চিম বড়ঘোনা, পুর্ব বড়ঘোনা ৯ নং ওয়ার্ড অংশে, খানখানাবাদ, বাহারচডা, সরল, শীলকূপ, শেখেরখীল, ছনুয়া এলাকা বেড়িবাঁধ উপছে সাগরের নোনা জল বেড়িবাঁধের ভিতরে গড়িয়ে পড়ে চাষাবাদের বিস্তির্ন এলাকা প্লাবিত হতে দেখা যায়। শেখেরখীলের সরকার বাজার এলাকা এবং বাংলাবাজারের ডেপুটিঘোনা এলাকায় বেড়িবাঁধ উপছে সাগরের লোনাজল এলাকার মানুষের বসতঘরে ঢুকে পড়ে। আবহাওয়া বিভাগের পূর্বাভাষ অনুযায়ী “ঘূর্নিঝড় “ইয়াস” বর্তমানে বাংলাদেশ সীমানা থেকে ৩৫০ কি:মি: দূরে অবস্থান করাকালীন সাগরের এ রূদ্রমূর্তি ধারন করলে রাতের জোয়ারে সাগরের পানির উচ্ছতা আরো বৃদ্ধি পেয়ে আরো নতুন নতুন অঞ্চল প্লাবিত হওয়ার শংকা রয়েছে। ঘুর্নিঝড় ইয়াস বাংলাদেশের স্থলভুমি অতিক্রম করার সম্ভাবনা না থাকলেও ভারতের উড়িশায় প্রায় ৩/৪ ঘন্টা ধরে যে ভয়ংকর তান্ডব চালিয়ে লন্ডভন্ড করে দিচ্ছে বেশ কয়েকটি জেলা। এর নেতিবাচক প্রভাবে সাগরে প্রায় ৫/৬ ফুট পানি বৃদ্ধি পেয়ে জলোচ্ছাষে পরিনত হওয়ায় বাঁশখালীর উপকূলীয় বিস্তির্ন এলাকা প্লাবিত হওয়ার পাশাপাশি ছনুয়া, গন্ডামারা পুর্ব বড়ঘোনা, শেখেরখীলের গুইল্লাখালী, ফাঁড়ির মুখ ও সরকার বাজার এরাকায় ও সরলে বেড়িবাঁধের কয়েকেটি অংশে ফাটল সৃষ্টিহয়েছে বলে জানিয়েছে প্রত্যক্ষদর্শী অনেকে।

গন্ডামারা ইউপি চেয়ারম্যান লেয়াকত আলী সকাল থেকে ব্যক্তিগতভাবে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করে জানান, ইয়াসের প্রভাবে জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় গন্ডামারা ইউনিয়নের বেড়িবাঁধের অনেকাংশ দিয়ে সাগরের লোনা পানি ঢুকে চাষাবাদের জমি প্লাবিত হয়েছে। প্লাবিত পানিতে প্রায় ২ শতাধিক ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে বলে ধারনা করছেন তিনি।

ঘূর্নিঝড় ইয়াসের ক্ষয়-ক্ষতি থেকে জান-মাল রক্ষার্থে বাঁশখালী প্রায় সকল সাইক্লোন শেল্টারগুলো খুলে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহি অফিসার (ইউএনও) সাইদুজ্জামান চৌধুরী। ইউএনও আরো জানান, ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রবণতা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসন। অন্যদিকে উপকূলীয় এলাকার লোকজনকে নিরাপদ আশ্রয় গ্রহণ করার জন্য সিপিপি ও কারিতাসের দুরযোগ ব্যবস্থাপনা কমিটিরি বিশেষভাবে নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। কিছু কিছু এলাকায় টেকশই বেড়িবাঁধ না হওয়াতে প্লাবিত হওয়ার আশংকাও রয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বাঁশখালীর খানখানাবাদ উপকূলে ইয়াসের প্রভাবে বেড়িবাঁধ উপছে প্রবাহিত হচ্ছে লোনা পানি। আতংকে আছে এলাকাবাসী। সেই সাথে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ও স্থানীয় ইউনিয়নের পক্ষ থেকে স্ব স্ব স্থানে মাইকিং করা হচ্ছে।

বিশেষ করে সাগর উপকূলীয় এলাকার লোকজন কে সরিয়ে নিরাপদ আশ্রয় গ্রহণ করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহি অফিসার। আবহাওয়ার পুর্বাভাষ অনুযায়ী রাতে জোয়ারের পানি আরো বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ঘুর্নিঝড় ইয়াসের প্রভাব থেমে যাওয়ার পর বাঁশখালী উপজেলার ক্ষয়-ক্ষতির সঠিক পরিসংখ্যন নির্নয় করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহি অফিসার সাইদুজ্জামান চৌধুরী।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। প্রকাশিত লেখাটির আইনগত, মতামত বা বিশ্লেষণের দায়ভার সম্পূর্ণরূপে লেখকের । মদিনা কন্ঠ-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এসব মন্তব্যের কোনো মিল নাও থাকতে পারে। লেখকের নিজস্ব মতামতের কোনো প্রকার দায়ভার “মদিনা কন্ঠ‘র কর্তৃপক্ষ ” নেবে না।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮ - ২০২১. দৈনিক মদিনা কন্ঠ
Design & Developed BY Rahmatullah Palush