মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ০৭:৪৩ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
“দৈনিক মদিনা কন্ঠ” ওয়েব সাইটটি ভিজিট করার জন্য আপনাকে আন্তরিক শুভেচ্ছা।
ব্রেকিং নিউজ :
আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে আবারও সংঘর্ষে শতাধিক আহত। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও মানব সেবায় এগিয়ে আসলেন-মানবিক নেতা এম হেলাল উদ্দিন। আগৈলঝাড়ায় বসত ঘর পুড়ে ছাই কিন্তু পোড়েনি কোরআন শরিফ। নলছিটিতে ড্রেজার মালিককে ৮০ হাজার টাকা জরিমানা। বাকেরগঞ্জে বজ্রপাতে একজনের মৃত্যু। বরিশাল বিভাগীয় অনলাইন সম্পাদক-প্রকাশক পরিষদের এতিম ছাত্রদের নিয়ে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত ওসমানীনগরে সময় মতো ইফতারী না দেওয়াতে নববধূ হত্যা, স্বামী-শাশুড়ি গ্রেফতার। বরিশালের চন্দ্রমোহন এলাকায় কবরস্থানের জমি দখল করে রাস্তা নির্মাণের অভিযোগ। এনআরবি ব্যাংকের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করলেন শফিক চৌধুরী। আগৈলঝাড়ায় খালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি উপলক্ষে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য ফ্রন্ট এর বিশেষ প্রার্থনা।

ঘোড়াঘাট ইউএনওর ওপর দুর্বৃত্তের হামলা।

ওয়াহিদা খানম

অনলাইন ডেস্ক:: গভীর রাতে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের বাসায় ঢুকে তার ওপর হামলা চালানো দুর্বৃত্তদের মুখে মাস্ক ছিল।

সিসিটিভির ফুটেজ বিশ্লেষণ করে ঘোড়াঘাট থানার ওসি আমিরুল ইসলাম সমকালকে এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, সিসিটিভির ফুটেজে দেখা গেছে হামলা ছিল দু’জন। তাদের একজনকে মাস্ক পরিহিত অবস্থায় দেখা গেছে। আরেকজনের চেহারা বোঝা যাচ্ছিল না।

গতকাল বুধবার রাতে ইউএনও ওয়াহিদা খানমের সরকারি বাসভবনে ঢুকে তার ও তার বাবা ওমর আলী শেখের ওপর হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। উভয়েরই শরীর ও মাথায় আঘাত লেগেছে। ধারণা করা হচ্ছে, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এই ঘটনা ঘটেছে। হাতুড়ি কিংবা ভারী কোনো বস্তু দিয়ে তাদের আঘাত করা হয়েছে।

গুরুতর আহত অবস্থায় বৃহস্পতিবার প্রথমে তাদের রংপুরের একটি বেসরকারি মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। পরে ইউএনও ওয়াহিদা খানমকে হেলিকপ্টারে ঢাকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে নেওয়া হয়। তার বাবা রংপুরে চিকিৎসাধীন।

জানা গেছে, ইউএনও ওয়াহিদা খানমের বাবা ওমর আলী প্রতিদিন সকালে হাঁটাহাঁটি করেন। কিন্তু বৃহস্পতিবার সকালে তিনি বাড়ি থেকে হাঁটার জন্য বের না হওয়ায় তার সঙ্গীরা খোঁজ নিতে বাড়িতে যান। পরে বাড়িতে ডাকাডাকি করেও কোনো সাড়া না পেয়ে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ এসে ইউএনও ও তার বাবাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান।

ঘটনার সময় প্রহরীকে একটি ঘরে বেঁধে রাখা হয়েছিল। ঘটনা জানার পরপরই দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম, পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেনসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। প্রকাশিত লেখাটির আইনগত, মতামত বা বিশ্লেষণের দায়ভার সম্পূর্ণরূপে লেখকের । মদিনা কন্ঠ-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এসব মন্তব্যের কোনো মিল নাও থাকতে পারে। লেখকের নিজস্ব মতামতের কোনো প্রকার দায়ভার “মদিনা কন্ঠ‘র কর্তৃপক্ষ ” নেবে না।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮ - ২০২১. দৈনিক মদিনা কন্ঠ
Design & Developed BY Rahmatullah Palush
You cannot copy content of this page