মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ১০:২৯ অপরাহ্ন

নোটিশ :
“দৈনিক মদিনা কন্ঠ” ওয়েব সাইটটি ভিজিট করার জন্য আপনাকে আন্তরিক শুভেচ্ছা।
ব্রেকিং নিউজ :
প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহারের তালিকায় এক পরিবারের সবার নাম । রাতের আধারে ত্রাণ নিয়ে আমেনা বেগমের পাশে দাঁড়িয়েছেন রাজাপুর ইউএনও। আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে আবারও সংঘর্ষে শতাধিক আহত। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও মানব সেবায় এগিয়ে আসলেন-মানবিক নেতা এম হেলাল উদ্দিন। আগৈলঝাড়ায় বসত ঘর পুড়ে ছাই কিন্তু পোড়েনি কোরআন শরিফ। নলছিটিতে ড্রেজার মালিককে ৮০ হাজার টাকা জরিমানা। বাকেরগঞ্জে বজ্রপাতে একজনের মৃত্যু। বরিশাল বিভাগীয় অনলাইন সম্পাদক-প্রকাশক পরিষদের এতিম ছাত্রদের নিয়ে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত ওসমানীনগরে সময় মতো ইফতারী না দেওয়াতে নববধূ হত্যা, স্বামী-শাশুড়ি গ্রেফতার। বরিশালের চন্দ্রমোহন এলাকায় কবরস্থানের জমি দখল করে রাস্তা নির্মাণের অভিযোগ।

কেজিতে তরমুজ বিক্রি, আকাশচুম্বী মূল্যে ক্রেতাদের চাপা ক্ষোভ।

তরমুজ

মো. নাঈম ,ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ মৌসুমের শুরু থেকেই তরমুজের দাম চড়া। তবে রমজান আর বৈশাখের খরতাপকে কেন্দ্র করে সবুজ তরমুজেও আগুন লেগেছে। যে আগুনে নিম্মমধ্যবিত্ত তো দূরের কথা, মধ্যবিত্তরাই পুড়ে ছারখার। অথচ দেশজুড়ে চলমান তীব্র তাপদাহে ইফতারের প্রধান উপকরণ হওয়ার কথা তরমুজ। পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ এই তরমুজ এখন রাজধানীসহ বিভিন্ন বিভাগীয় ও জেলা শহরে কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এই সুযোগে বিক্রেতাদের মুনাফা চরমে।

গত এপ্রিলের শুরুতে যে তরমুজের কেজি ৩০ থেকে ৪৫ টাকা ছিল এখন তা বাড়িয়ে বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ৯০ টাকায়। মৌসুমের শুরু থেকেই তরমুজের দাম চড়া।

পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ এই তরমুজ এখন জেলা শহরসহ সর্বত্রই কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এই সুযোগে বিক্রেতাদের মুনাফা চরমে। চলতি সপ্তাহে খুচরা বাজারে এক কেজি তরমুজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি। বেশি ভালো মানেরগুলো ৬৫ থেকে ৭০ টাকাতে বিক্রি হচ্ছে। এতে পাঁচ কেজির একটি তরমুজের জন্য ক্রেতাকে গুনতে হচ্ছে ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা! অথচ এই তরমুজের দাম ৬০-৭০ টাকার বেশি হওয়ার কথা নয়। প্রতিটি তরমুজ কমপক্ষে ১০০ টাকা বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে!

ক্রেতাদের ভাষ্য, তরমুজ যতই ছোট হোক না কেন চার কেজি ওজনের নিচে কোনো সাইজ নেই। এতো ভারী একটি ফল ছোট পরিবারের জন্য কিনতে গেলেও পাঁচ কেজির নিচে হয় না। তবে বেশি দামের জন্য তারা কিনতে পারছেন না।

প্রশ্ন উঠেছে, এতো দাম হাঁকানো তরমুজের উৎপাদক প্রান্তিক চাষিরা কেমন দাম পাচ্ছেন? তারা পাইকারি বিক্রেতা বা আড়তদারদের কাছে বেশি দামে বিক্রি করায় কি আজ তরমুজের বাজারে আগুন? তারাও কি ব্যবসায়ীদের কাছে কেজি দরে বিক্রি করেন?

এ বিষয়ে তরমুজের কয়েকজন চাষির সঙ্গে কথা বলেছেন ঝালকাঠি জেলা প্রতিনিধি মো. নাঈম তরমুজ চাষি শামছুল আলম বলেন, ‘বর্তমান বাজারে স্থানীয়ভাবে ১০ কেজি ওজনের তরমুজ পাইকারদের কাছে শ’ হিসেবে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আর ঢাকাসহ দেশের অন্যান্য এলাকায় নিয়ে ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে।’

আরেক তরমুজ চাষি মজিবুর রহমান মিন্টু জানান, আড়তদারদের কাছে চার কেজি ওজনের তরমুজ সর্বোচ্চ ৫০ টাকায় বিক্রি করতে পারেন তারা। ১০০ টাকায় যে তরমুজ বিক্রি হয় তার ওজন ৭-৮ কেজি হয়। আড়তদারদের কাছে এই দামে তরমুজ বেচেই অনেক লাভবান তারা।

তিনি বলেন, ‘পরিবহন খরচের অজুহাতে সিন্ডিকেট ও মধ্যস্বত্বভোগীরা বেশি লাভবান হতে এমন দর বাড়িয়ে দিয়েছেন। চাষিরা যদি সরাসরি ভোক্তাদের কাছে তরমুজ বিক্রি করতে পারেন তাহলে দাম অনেক কম হবে।’

দেশের বেশিরভাগ এলাকায় তরমুজের দাম নির্ধারণ হয়ে থাকে এর আকার অনুযায়ী। তিন বছর আগেও একটি ছোট আকারের তরমুজ (গড় ওজন ৪ কেজি পর্যন্ত) গড়ে ৩০ থেকে ৪০ টাকা, মাঝারি আকারের তরমুজ (গড় ওজন ৫ কেজি থেকে ১০ কেজি) ৮০ থেকে ১৮০ টাকা এবং বড় সাইজের তরমুজ (১০ কেজি থেকে আধামণ বা তারও বেশি ওজনের) ২০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হতো। তবে ইদানীং দাম বেড়ে যাওয়ায় বিশেষত ডিপার্টমেন্টাল স্টোর ও সুপারশপগুলোতে তরমুজ কেজিতে বিক্রির চল শুরু হয়। সে হিসাবে, গতবছর বৈশাখের মাঝামাঝি সময়ে মাঝারি বা বড় আকৃতির তরমুজ ৪৫ থেকে ৫৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও এবারে এর দাম আকাশচুম্বী।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। প্রকাশিত লেখাটির আইনগত, মতামত বা বিশ্লেষণের দায়ভার সম্পূর্ণরূপে লেখকের । মদিনা কন্ঠ-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এসব মন্তব্যের কোনো মিল নাও থাকতে পারে। লেখকের নিজস্ব মতামতের কোনো প্রকার দায়ভার “মদিনা কন্ঠ‘র কর্তৃপক্ষ ” নেবে না।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮ - ২০২১. দৈনিক মদিনা কন্ঠ
Design & Developed BY Rahmatullah Palush
You cannot copy content of this page